রেডিয়ামে ভূত


মো. আব্দুল্লাহ খালিদ

ঘটনাটা প্রায় সাত বছর আগের। তখন আমরা থাকতাম খুলনা নেভী কলোনীতে। থাকার জায়গা হিসেবে চমৎকার এই কলোনী। কোয়ার্টাস, মসজিদ, হাসপাতাল, স্কুল-কলেজ, ক্যান্টিন, কিন্ডারগার্ডেন, খেলার মাঠ, শিশুপার্ক, গাছপালা, পুকুর সব মিলিয়ে স্বয়ংসম্পূর্ণ কলোনীটা।

কলোনীতে ফাহাদ নামে খুব প্রিয় এক বন্ধু ছিল আমার। লেখাপড়া, খেলাধূলা, দুষ্টামি সব কিছুতেই ও ছিল নাম্বার ওয়ান। আর আমি ছিলাম কিছুটা সহজ সরল ধার্মিক টাইপের। তারপরও আমরা ছিলাম প্রাণের বন্ধু। রাতের বেলা লুকিয়ে লুকিয়ে আমগাছের আম চুরি বা কাক ডাকা ভোরে কিন্ডারগার্ডেনের জামরুল গাছের জামরুল চুরির ক্ষেত্রে ফাহাদের জুরি মেলা ভার। আর আমি থাকতাম সে সব অভিযানে সহকারী হিসেবে।

ফাহাদের ছিল রেডিয়ামের একটা মুখোশ। একদিন সেটা নিয়ে ও আমাদের বাসায় এল। মুখোসটার ফিতা ছিড়ে গিয়েছিল। ও আমাকে বলল একটা ফিতা বা ইলাস্টিক দিতে। সময় পেলে আমার মা সেলাইয়ের কাজ করতেন। তাই মার কাছ থেকে একটা ইলাস্টিক চেয়ে ফাহাদকে দিলাম। ফাহাদ সেটা নিয়ে মুখোশটা ঠিক করল।

আমি ওকে জিজ্ঞেস করলাম কি করবে ওটা দিয়ে। ফাহাদ বিষয়টা এড়িয়ে গেল। বলল, পরে জানাবো। আমিও আর মাথা ঘামাই নি বিষয়টি নিয়ে।

একদিন এশার নামাজ শেষ করে আমরা কয়েকজন বন্ধু ঘুরছিলাম। সে সময় আরেক বন্ধু বাবু এসে বলল, ‘চল, তোদের একটা জিনিস দেখাই।’

আমার সাথে ছিল শাওন, শোভন আর নাহিদ। ওরা আগ্রহী হয়ে উঠল। শাওন বলল, ‘জিনিসটা কি?’

‘আরে আয় না, দেখাচ্ছি,’ বলে বাবু আমাদের নিয়ে চলল ২৮ নম্বর বিল্ডিংয়ের দিকে। বিল্ডিংটা ভূতের জন্য ছিল কুখ্যাত। বিল্ডিংটার চারপাশে ছিল গাছপালায় ঘেরা আর অন্ধকার। পাঁচতলা বিল্ডিংটার সামনে এসে বাবু আমাদের বলল যে এর ছাদে ও একটা জিনিস দেখেছে, সাহস থাকলে ওর সাথে আসতে।

যেহেতু সাহসের প্রশ্ন, তাই কেউ আর পেছপা হলাম না। সবাই গেলাম বিল্ডিংয়ের ছাদে। আসার সময় বাবু আমাদের নানা কথা বলে ভয় দেখাতে লাগল।

অবশেষে হাপাতে হাপাতে ছাদে পৌছুলাম আমরা। বড় ছাদটা পুরোটাই ফাকাঁ। বাবু আমাদের বলল সামনে যেতে। ওর কথামত সামনে গেলাম আমরা। হঠাৎ ছাদের এক কোন থেকে একটা সবুজ মুখোশ ছুটে এল আমাদের দিকে।

আমরা তো পড়িমরি করে দৌড়ালাম দরজার দিকে। ঠিক দরজার সামনে গিয়ে আমি দাড়িয়ে পড়লাম। মনে পড়ল ফাহাদের রেডিয়ামের মুখোশের কথা। ফিরে দেখি ঠিক তাই। রেডিয়ামের মুখোশ পরে ফাহাদ আর বাবু হাসতে হাসতে গড়াগড়ি খাচ্ছে। আমিও যোগ দিলাম ওদের সাথে।

পরদিন স্কুলে রেডিয়াম ভূতের রহস্য ফাস হল। ভীষন লজ্জায় পড়ে গেল শাওন, শোভন আর নাহিদ। ফাহাদের বাসায় তারাও দেখেছে মুখোশটাকে। শুধু আমিই বুঝে ছিলাম বিষয়টা। ভাগ্যিস বুঝেছিলাম। নাহলে রেডিয়াম ভূতের তাড়া খেয়ে পালিয়েছিলাম আমি, সেটা বলে ওরা আমাকেও লজ্জা দিত।

All News

বিয়ে কি, কেন এবং কিভাবে করবেন?

এ বি এম মুহিউদ্দীন ফারাদী (পর্ব-১, ভূমিকা) বুঝ হওয়া মাত্র প্রত্যেক ছেলে-মেয়ে কল্পনার মানসপটে চুপিচুপি এমন একজনের ছবি আঁকে এবং আনমনে এমন একজনের কথা ভাবে, যাকে সে একান্ত আপন করে কাছে পেতে চায়। মনের অজান্তে তাকে ঘিরে রচিত হয় স্বপ্ন প্রাসাদ। কে হবে তার সুখ-দুঃখের চির সাথী, বন্ধু ও প্রিয়জন?Read More

ইচ্ছে